Business is booming.
শীর্ষ সংবাদ
আজও রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি মেলেনি ভাষা সৈনিক ঠাকুরগাঁও এর কীর্তিমান দবিরুল ইসলামের!একুশের প্রভাত ফেরিতে ভাষা শহীদদের প্রতি রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধারক্তে রঞ্জিত একুশে ফেব্রুয়ারি আজচিত্র নায়িকা ও বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান শাহনুর এর শুভ জন্মদিন আজচিত্রনায়ক রিয়াজের শ্বশুর ফেইসবুক লাইভে এসে আত্বহত্যা!উদ্বোধন হলো পুলিশ কল্যাণ ট্রাস্টের উদ্যোগে পরিচালিত “ওয়েসিস” নারী-পুরুষের সমতা নিশ্চিত করতে চায় সরকার: জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রীআজ মধ্যরাত থেকে ইলিশ ধরা বন্ধ হচ্ছে ।‌‘লেট’স গো মার্ট’র ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হলেন অভিনেত্রী ও মডেল বিদ্যা সিনহা মিমদেশের উদ্দেশে রওনা হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

কিংবদন্তী গীতিকবি গাজী মাজহারুল আনোয়ারের জন্মদিন আজ

42

বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের জীবন্ত কিংবদন্তি গাজী মাজহারুল আনোয়ারে জন্মদিন সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারি)। একুশে পদকপ্রাপ্ত বরেণ্য এই গীতিকবি এ বছর নিজের ৭৮তম জন্মদিন উদযাপন করছেন।

১৯৪৩ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার তালেশ্বর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন গাজী মাজহারুল আনোয়ার। ১৯৬৪ সাল থেকে তিনি তৎকালীন রেডিও পাকিস্তানে গান লেখা শুরু করেন।

এখন পর্যন্ত তার রচিত গানের সংখ্যা ২০ হাজারেরও বেশি। তার গানে উঠে এসেছে মুক্তিযুদ্ধ, দেশপ্রেম, প্রকৃতি, জীবনবোধ, প্রেম, বিরহ, স্নেহ, অনুভূতির কথা।

১৯৬২-৬৩ সালে মেডিক্যাল কলেজে পড়ার সময় গাজী মাজহারুল আনোয়ারে লিখেছিলেন প্রথম গান ‘বুঝেছি মনের বনে রং লেগেছে’। গানটির সুর করেছিলেন নাজমূল হুদা বাচ্চু ও শিল্পী ছিলেন ফরিদা ইয়াসমিন।

১৯৬৪ সালে রেডিও পাকিস্তানে গান লিখে ৫০ টাকা আয়ের মাধ্যমে পেশাদার গীতিকার হিসেবে জীবন শুরু করেন তিনি।
১৯৬৫ সালে চলচ্চিত্রে যুক্ত হওয়ার পর গাজী মাজহারুল আনোয়ার চিত্রনাট্য, গান, সংলাপ ও কাহিনি রচনা শুরু করেন। বাংলাদেশ টেলিভিশনের জন্মলগ্ন থেকেই তার অবদান ছড়িয়ে আছে সংশ্লিষ্ট প্রতিটি অঙ্গনে।

সুভাষ দত্তের ‘আয়না ও অবশিষ্ট’ চলচ্চিত্রে ‘আকাশের হাতে আছে একরাশ নীল’ গানটি দিয়ে চলচ্চিত্রের গান লেখা শুরু করেন গাজী মাজহারুল আনোয়ার। তিনি একজন সফল কাহিনীকার, চিত্রনাট্যকার ও পরিচালকও। তার প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান দেশ চিত্রকথা থেকে শাস্তি, স্বাধীন, শর্ত, সমর, শ্রদ্ধা, ক্ষুধা, স্নেহ, তপস্যা, উল্কা, আম্মা, পরাধীন, আর্তনাদ, পাষাণের প্রেম, এই যে দুনিয়া- নামের চলচ্চিত্র প্রযোজনা ও পরিচালনা করেছেন।

বিবিসি’র জরিপে সর্বকালের সেরা ২০ বাংলা গানের মধ্যে তিনটি গানের রচয়িতা গুণী এই গীতিকবি। গানগুলো হচ্ছে- ‘জয় বাংলা বাংলার জয়’, ‘একতারা তুই দেশের কথা বল’ ও ‘একবার যেতে দে না’।

গীতিকার হিসেবে ৫ বার পেয়েছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। এছাড়াও ২০০২ সালে একুশে পদক, ১৯৭২ সালে প্রেসিডেন্ট স্বর্ণপদক, এস এম সুলতান স্মৃতি পদক, একাধিকবার বাচসাস পদকসহ অসংখ্য সম্মাননা রয়েছে তার ঝুলিতে।

একুশে পরিবারের পক্ষ থেকে জীবন্ত কিংবদন্তী কে জন্মদিনের শুভেচ্ছা

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.

Select Language