Business is booming.
শীর্ষ সংবাদ
উদ্বোধন হলো পুলিশ কল্যাণ ট্রাস্টের উদ্যোগে পরিচালিত “ওয়েসিস” নারী-পুরুষের সমতা নিশ্চিত করতে চায় সরকার: জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রীআজ মধ্যরাত থেকে ইলিশ ধরা বন্ধ হচ্ছে ।‌‘লেট’স গো মার্ট’র ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হলেন অভিনেত্রী ও মডেল বিদ্যা সিনহা মিমদেশের উদ্দেশে রওনা হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাপ্রেমিককে বিয়ে করতে রাজকীয় মর্যাদা ছাড়ছেন জাপানি রাজকুমারীডিএমপির নতুন কমিশনার হিসেবে আলোচনায় শীর্ষে ডিআইজি হাবিবুর রহমানশ্রীলঙ্কায় নারীদের একবছর গর্ভধারণ না করার আহ্বান দেশটির সরকারআইজিপি ড.বেনজির আহমেদের উদ্যোগে ও ডিআইজি হাবিবুর রহমানের তত্ত্বাবধানে চালু হতে যাচ্ছে অত্যাধুনিক মাদকাসক্তি নিরাময় ও পুনর্বাসন কেন্দ্র “ওয়েসিস”বিশ্ববিখ্যাত সুর সম্রাট ওস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁ’র ৪৯তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

করোনায় গ্রামীনফোনের অফারের যৌক্তিক ব্যাখ্যা দিলেন অভিনেতা আবির চৌধুরী

485

সম্প্রতি বাংলাদেশের সব থেকে বড় টেলিকমিউনেকশন কোম্পানী গ্রামীনফোনের সিইও গ্রাহকদের মধ্যে করোনা নিয়ে একটি অফার ১কোটি মানুষকে ১০ কোটি মিনিট কলরেট, প্রতি ডাক্তারদের জন্য ১ টাকায় ৩০ জিবি এমনকি ৭দিনের মেয়াদে ১০০% বোনাস অফার। তবে এরকম অফারে একুশে নিউজ ডট কম ডট বিডিতে একটি নিউজ করার পর তা নিয়ে একটি যৌক্তিক ব্যাখ্যা দেন এই হালের চলচ্চিত্র অভিনেতা আবির চৌধুরী।

তিনি বলেন, ‌’এই ক্রান্তিকাল তাদের অফার আমার মোটেই পছন্দ হয়নি। যদি ১ কােটি মানুষকে এই অফার দেয়া হয় তাহলে কি দাঁড়ায় ১ কোটি গুন ১০ সমান তো ১০ কোটি! অন্যদিকে প্রতিটি ডাক্তার ১ টাকায় ৩০ জিবি! আমরা যারা প্রতিদিন ১০০ থেকে ২০০ মিনিট খরচ করি। তাদের এই ১০ মিনিট কি এমন কাজে আসবে? আবার প্রতিটি ডাক্তার কি গ্রামীনফােনের সীম ব্যবহার করেন? এরকম অফারের মানে দাঁড়ায় যে আমার ১০০ টাকা হারিয়ে ফেলেছি, সেই টাকা আমি মসজিদে দান করার মতো… এটা আসলে খুবই হাস্যকর। যদিও ১০০% অফারটি অনেকের প্রয়োজনে আসবে হয়তো। তবে তারা ইচ্ছে করলে দেশের এই ক্লান্তিকালে বড় কোন সুবিধা সবাইকে দিতে পারতো। অন্যদিকে তিনি তার ফেসবুকে এই বিষয় নিয়ে কিছু মন্তব্য ছুঁড়ে দিয়েছেন এই কোম্পানীকে। যা হুবহু তুলে ধরা হলো…

দৃষ্টিপাত….
বৈশ্বিক করোনায় আক্রান্ত মহামারীরর ক্রান্তিকাল অতিক্রমরত দু:সময়ে দেশের বৃহত্তম সেবাদানকারী কর্পোরেট গ্রামীন ফোনর সিইও তার গ্রাহকদের কোভিড-১৯ মোকাবেলায় ১০০ কোটি টাকার সরাসরি ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য যে মহতি উদ্যেগ নিয়েছে তা অবশ্যই ইতিবাচক । এই উদ্যোগটির মূলত সুফল ভোগকারীরা হোল কেবল তার নিজস্ব গ্রাহক কেন্দ্রিক।বাংলাদেশ এখন সদ্য মধ্যম আয়ের উন্নীত দেশ,সেই হিসেবে করোনা মোকাবিলা করতে গিয়ে দেশের অর্থনীতিকে সবল রাখতে সরকারকে অবশ্যই আভ্যন্তরীণ সম্পদের উপর নির্ভরতা বাড়াতে হবে।

এক্ষেত্রে গ্রামীন ফোন ১০০কোটি টাকাটা তার নিজ গ্রাহকদের না দিয়ে সেই টাকাটা যদি নগদে সরকারকে সহায়তা দিতে পারে তাহলে আরো ভালো হোত, কারন বর্তমান সময়ে করোনা মোকাবিলার জন্য সরকারের কাছে নগদ অর্থের প্রয়োজন অনেক বেশী।সরকারের তাৎক্ষনিক স্বাস্হ্য সেবার জন্য সরঞ্জাম ক্রয়ের প্রয়োজনে বিপুল পরিমান নগদ অর্থের দরকার বলে আমি মনে করি। আমি গ্রামীণ ফোন কোম্পানীর নীতিনির্ধারকদের অনুরোধ করবো ১০০ কোটি টাকাটা সরকারের হাতে তুলে দিয়ে তারা যেন সরকারের হাতকে শক্তিশালী করতে সহায়তা বাড়ায়।

উল্লেখ্য, সকল গ্রামীণফোন গ্রাহকদের জন্য সকাল ৮টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত প্রতি মিনিট ৪৮ পয়সা কল রেট, মাইজিপি থেকে সাপ্তাহিক সকল ইন্টারনেট প্যাকে ১০০শতভাগ বোনাস, ক্ষতিগ্রস্ত খুচরা ব্যবসায়িদের জন্য ১০ কোটা টাকার নিরাপত্তামূলক ক্রেডিট স্কিমের এমন অফারে দেশের বিভিন্ন গ্রাহক দ্বিমত পোষণ করেন। কারণ এই কোম্পানী থেকে এর চেয়ে বড় কিছু আশা করতেই পারে দেশের জনগণ।

https://www.facebook.com/photo.php?fbid=3273803202662533&set=a.298066463569570&type=3&theater

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.

Select Language